কেন্দ্রীয় ব্যাংককে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখাচ্ছে সিটি ব্যাংক

0
265

কেন্দ্রীয় ব্যাংককে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখাচ্ছে সিটি ব্যাংক

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বেসরকারি খাতের সিটি ব্যাংক লিমিটেড করোনা মহামারীর অজুহাতে প্রায় ১১০০ কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করেছে। বরখাস্ত হওয়া কর্মচারীদের ৯৫ শতাংশের কোনো অভিযোগ ছিল না, কেবল এমডির অপছন্দের কারণে তাদেরকে চাকুরি থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

অব্যাহতিপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা বলছেন, নানা অপকৌশলে সিটি ব্যাংকের সফল ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোহেল আরকে হুসেইনকে চাকরি ছাড়তে বাধ্য করে এমডির দায়িত্ব নেয় মাশরুর আরেফিন।
সিটি ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ ২০১৯ সালের ১৭ জানুয়ারি মাশরুরকে এমডি নিয়োগের সিদ্ধান্ত নেয়। ব্যবস্থাপনা পরিচালনা পরিচালকের দায়িত্ব নিয়েই প্রথমে চাকরি ছাড়তে বাধ্য করেন সাবেক এমডি সোহেল আরকে হুসেইনের ব্যক্তিগত সচিব (পিএস) মনিরা সুলতানা পপিকে।
চাকরি ছাতে রাজি না হওয়ায় তাকে এমডির দপ্তর থেকে শাখায় বদলি করা হলেও অফিস করেননি পপি। পরবর্তীতে মনিরা সুলতানা পপি মাশরুর আরেফিনের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে মামলা করেন। পপির বিরুদ্ধে পাল্টা মামলা দেয় সিটি ব্যাংক।

পপির মামলার পর অন্য ব্যাংকারদের চাকরিচুত্য করার ব্যাপারে অনেকটা নিশ্চুপ ছিলেন মাশরুর আরেফিন। পছন্দের লোক নিয়োগ দিতে এবং অপছন্দের কর্মীদের বাদ দেওয়া্র একটি সুবর্ণ সুযোগ তৈরি করে দিয়েছে মহামারী করোনাভাইরাস।

তারপর করোনার অজুহাতে ২০২০ সালের এপ্রিল থেকে চলতি বছরের ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মাশরুর আরেফিন এক হাজার ৯৮ জন কর্মকর্তাকে চাকরি ছাড়তে বাধ্য করেছেন। যদিও সিটি ব্যাংক বলছে সকল কর্মকর্তাই স্বেচ্ছায় চাকরি ছেড়েছেন। তবে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করা কয়েকজন কর্মকর্তা জানান তাদের পদত্যাগে বাধ্য করা হয়েছে। স্বেচ্ছায় পদত্যাগ না করলে সার্ভিস বেনিফিট দেওয়া হবে না বলে হুমকিও দিয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শন দলও চাকরিচ্যুত কর্মকর্তাদের বক্তব্যের সত্যতা পেয়েছে। পরিদর্শন দলটি ছাটাই, অপসারণ ও বরখাস্ত করা কর্মকর্তাদের নথি যাচাই করে দেখেছেন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের ক্ষেত্রে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করেনি সিটি ব্যাংক। কারণ দর্শানো নোটিশ বা আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ পর্যন্ত দেওয়া হয়নি।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক চলতি বছরের ১৬ সেপ্টেম্বর একটি সার্কুলার জারি করে। সার্কুলারে বলা হয়, ২০২০ সালের ১ এপ্রিল হতে চলতি বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত যে সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী সুনির্দিষ্ট ও প্রমাণিত কোন অভিযোগ না থাকা সত্ত্বেও চাকরিচ্যুত হয়েছে কিংবা পদত্যাগ করতে বাধ্য হয়েছে তাদেরকে (আবেদন প্রাপ্তি সাপেক্ষে) বিধি মোতাবেক চাকরিতে বহাল করতে হবে। একই সঙ্গে সুনির্দিষ্ট ও প্রমাণিত কোন অভিযোগ না থাকলে কর্মকর্তা-কর্মচারীগণকে চাকরিচ্যুত করা যাবে না বলেও নির্দেশনা দেওয়া হয়।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এই সার্কুলার জারির পরে চাকরিচ্যুত প্রায় অর্ধর্শত ব্যাংকার কাজে যোগদানের জন্য সিটি ব্যাংকে আবেদন করেন। কিন্তু কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনার তোয়াক্কা না করে এখন পর্যন্ত তাদের কাজে ফেরানোর ব্যবস্থা করেনি সিটি ব্যাংক।

চাকরিচ্যুত ব্যাংকাররা বলেছেন মাশরুর আরেফিন পরিচালনা পর্ষদকে ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে সহ্রসাধিক কর্মকর্তার চাকরি ছাড়তে বাধ্য করে তার পছন্দের লোক নিয়োগ দিয়েছেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম এ বিষয়ে বলেন, কোভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাবে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে সরকার ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজসমূহের যথাযথ বাস্তবায়ন এবং কাঙ্ক্ষিত জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জনের নিমিত্ত ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ অগ্রগণ্য ভূমিকা পালন করেছে। সুনির্দিষ্ট ও প্রমাণিত কোন অভিযোগ না থাকা সত্ত্বেও কোভিডকালীন শুধুমাত্র লক্ষ্যমাত্রা অর্জন না করা বা অদক্ষতার অজুহাতে যেসব কর্মকর্তা-কর্মচারীগণকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে তাদের ফেরানোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, যেসব ব্যাংক কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা মানবে না তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here